‘অপহৃত‘ ইরানি ওয়াশিংটনে

dr shahram amiri
Image caption ইরানি বিজ্ঞানী শাহরাম আমীরি

ইরানের নিখোঁজ এক পরমানু বিজ্ঞানী ওয়াশিংটনে পাকিস্তানি দূতাবাসে আশ্রয় নেবার পর এই বিজ্ঞানীকে ঘিরে ইরান ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে বির্তক এক নতুন মোড় নিয়েছে৻ ইরান এর আগে অভিযোগ করেছিল যে বিজ্ঞানী শাহরাম আমীরিকে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ অপহরণ করেছে৻

পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মূখপাত্র আবদুল বাসিত বিবিসিকে জানিয়েছেন, যুক্তরাষ্ট্র বা ইরান কেউই এই ঘটনায় জড়িত হতে তাদেরকে অনুরোধ করেনি তবে প্রয়োজন হলে তারা এতে সম্পৃক্ত হবেন৻

বিজ্ঞানী শাহরাম আমীরির রহস্যময় কয়েকটি ভিডিও ইন্টারনেটে প্রকাশের পর এই ঘটনার নাটকীয়তা বৃদ্ধি পায়৻ এই তিনটি ভিডিওতে আছে পরষ্পরবিরোধী তথ্য৻ প্রথম ভিডিওতে, যা ইরানের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের প্রচার করা হয়, সেখানে বলা হয়েছে যে তিনি যখন সৌদি আরবে হজ্ব করতে গিয়েছিলেন তখনই যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা তাকে অপহরন করেছে৻

এই ভিডিওতে মি. আমীরি বলেছেন, তিনি এখন যুক্তরাষ্ট্রে৻ ভিডিওটি কখন তৈরি করা হয়েছে সেকথাও উল্লেখ করেছেন তিনি৻ সেদিন ছিলো ৫ই এপ্রিল ২০১০৻

‘সৌদি আরবে অভিযান চালিয়ে আমাকে আটক করা হয়েছে৻ মদিনা শহর থেকে আমাকে অপহরন করার পর শরীরে ইঞ্জেকশন দেওয়া হয়েছে৻ এরপর কয়েকদিন আমার জ্ঞান ছিলো না৻ আমাকে তখন যুক্তরাষ্ট্রে নিয়ে যাওয়া হয়৻ গত আট মাসে আমার উপর নির্মম নির্যাতন চালানো হয়েছে৻‘ বলেন ইরানি বিজ্ঞানী শাহরাম আমীরি৻

ইরান সরকারের পক্ষ থেকেও তখন এই বিজ্ঞানীকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে আটক রাখা হয়েছে বলে দাবী করা হয়৻ গণমাধ্যমে বলা হয় মি. আমীরি তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন গবেষক৻ কোনো কোনো খবরে বলা হয় যে তিনি ইরানের পরমাণু বিষয়ক সংস্থায় কাজ করেন এবং ইরানের বিতর্কিত পরমাণু কর্মসূচীর বিষয়ে তার রয়েছে বিস্তারিত ধারণা৻

তবে বিভিন্ন মার্কিন সূত্রে দাবী করা হয় যে শাহরাম আমীরি স্বেচ্ছায় যুক্তরাষ্ট্রের কাছে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ফাস করে দিয়েছেন৻

এর কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই দ্বিতীয় আরেকটি ভিডিও ইয়্যু টিউবে প্রকাশ করা হয় যেখানে একই রকমের দেখতে ওই বিজ্ঞানী দাবী করছেন যে যুক্তরাষ্ট্রে তিনি স্বাধীনভাবে ও নিরাপদে বসবাস করছেন৻

ওই ভিডিওতে তিনি বলেন, ‘এখানে আমি মুক্ত এবং প্রত্যেককে আশ্বস্ত করছি যে আমি নিরাপদে আছি৻‘

সপ্তাহ দুয়েক আগে ইরানি টেলিভিশনে তৃতীয় একটি ভিডিও সম্প্রচার করা হয় যেখানে তিনি বলছেন, মার্কিন নিরাপত্তা বাহিনীর হাত থেকে তিনি পালিয়ে আসতে সক্ষম হয়েছেন৻ মি. আমীরি দাবী করেন নিরাপদ একটি জায়গায় তিনি এই ভিডিওটি তৈরি করেছেন এবং যেকোনো সময়ে তিনি গ্রেফতার হতে পারেন৻ তাকে ইরানে তার পরিবারের সাথে যোগাযোগ করতে দেওয়া হচ্ছে না বলেও তিনি দাবী করেন৻

এর কয়েকদিন পরেই ওয়াশিংটনে পাকিস্তানি দূতাবাসের কর্মকর্তা আবদুল বাসিত এখন বলছেন যে শাহরাম আমীরি দূতাবাসের ইরান শাখায় আশ্রয় নিয়ে তাকে এখনই দেশে ফেরত পাঠানোর অনুরোধ করেছেন৻

তিনি জানান, ওয়াশিংটনে পাকিস্তানি দূতাবাসের ইরান বিভাগের প্রধানের সাথে তাদের যোগাযোগ হয়েছে৻ তাদেরকে বলা হয়েছে যে ড. শাহরাম আমীরি গতকাল থেকে সেখানে অবস্থান করছেন৻

‘সেটা কিভাবে হয়েছে এ বিষয়ে আমি কিছু জানি না৻ এখন তাকে ইরানে ফেরত পাঠানোর ব্যাবস্থা করা হচ্ছে৻‘ বলেন আবদুল বাসিত৻

১৯৭৯ সালে ইরানে ইসলামিক বিপ্লবের পর যুক্তরাষ্ট্র দেশটির সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করেছে৻ বিজ্ঞানী আমীরির ঘটনায় তেহরানের অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছে ওয়াশিংটন৻

বিবিসির সংবাদদাতা বলছেন, শাহরাম আমীরিকে ঘিরে নাটকীয় ও রহস্যময় এই ঘটনা মার্কিন গোয়েন্দা বিভাগগুলোর জন্যে এক বিব্রতকর পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে৻