কৃষি ঋণ নীতিতে নতুন খাতের অগ্রাধিকার

আতিউর রহমান
Image caption কৃষি ‌ঋণ নীতি ঘোষণা করছেন গর্ভনর

বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক ২০১০-২০১১ অর্থবছরের জন্য কৃষি ঋণ নীতিমালা ঘোষনা করেছে।

চলতি অর্থবছর ১২ হাজার ৫০০ কোটি টাকারও বেশি কৃষি ঋণ বিতরণের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানিয়েছেন ব্যাংকের গভর্নর ড: আতিউর রহমান।

এর আগে বিভিন্ন ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তাদের সাথে কৃষি ঋণ নীতিমালা ও বিতরণের বিভিন্ন দিক নিয়ে তাঁরা আলোচনা করেন।

সংবাদ সম্মলনে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড: আতিউর রহমান জানান চলতি অর্থবছর বিভিন্ন ধরনের শস্য, মাছ এবং প্রানিসম্পদ এই তিনটি খাত কৃষি ঋণ পাওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাবে। মুলত: কৃষি কাজে সরাসরি জড়িত কৃষকগণ এই ঋণের জন্য আবেদন করতে পারবেন।

সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর বলেন, এ অর্থবছরে তারা আগের চেয়েও বিস্তৃত কর্মসূচী নিয়েছেন।

সহজে এই ঋণ বিতরণের জন্য বিভিন্ন ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলেও তিনি জানান৻

কৃষি ঋণ বিতরনের জন্য নতুন খাত অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে৻

পাম চাষে বাংলাদেশের সম্ভবনা বিবেচনা করে বানিজ্যিক ভিত্তিতে পাম চাষে কৃষকদের আগ্রহী করতে এ বিষয়টিকে কৃষি ঋণ নীতিমালায় রাখা হয়েছে।

এছাড়াও এই নিতিমালায় গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে পাট চাষকেও।

প্রনীত নীতিমালায় ডাল, তেলবীজ, মসলা এবং ভুট্টার উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য আগের বছরের মতো এবারো রেয়াতি হার সুদে ঋণ দেওয়ার ওপর গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া ফসলি জমিতে সেচ ব্যবস্থার উন্নয়নেও ঋন দেওয়ার কথা বলা হয়েছে এবারের কৃষি ঋণ নীতিমালায়।

ড: রহমান জানান, গত বছরে কৃষি ঋণ বিতরনে লক্ষমাত্রার ৯৭% অর্জিত হয়েছে।

এবছর ঋণ বিতরন তদারকি করতে প্রতিটি জেলায় ঋণ মনিটরিং কমিটির সদস্য সংখ্যা বৃদ্ধি করা হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

এসব ঋণ রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন এবং বিভিন্ন বেসরকারী ব্যাংক থেকে বিতরণ করা হবে বলেও সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়েছে।