গৃহকর্মীদের অধিকার রক্ষায় নীতি

domestic worker abuse
Image caption গৃহকর্মীরা প্রায়ই নির্যাতনের শিকার হন (ছবি - বাংলাদেশ মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থার সৌজন্যে)

বাংলাদেশে সরকার গৃহকর্মীর প্রাথমিক শিক্ষা বাধ্যতামূলকসহ বিভিন্ন শর্তারোপ করে ‘গৃহকর্মী সুরক্ষা ও কল্যাণ নীতি‘ প্রণয়ন করতে যাচ্ছে৻

কর্মকর্তারা বলছেন, প্রস্তাবিত এই নীতিতে গৃহ-কর্মীদের নিবন্ধন, কাজের শর্ত ও নিরাপত্তা, শোভন কর্মপরিবেশ ও মজুরি নিশ্চিত করতে স্পষ্ট নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে৻

ইতিমধ্যেই এই নীতির খসড়া তৈরি হয়েছে যা খুব শিগগিরই মন্ত্রিসভায় উপস্থাপন করা হবে৻

আপনার ডিভাইস মিডিয়া প্লেব্যাক সমর্থন করে না

শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব নূরুল হক বলছেন, এই নীতি বাস্তবায়িত হলে গৃহকর্মী ও নিয়োগকারী উভয়েরই দায়বদ্ধতা বাড়বে বলে তারা আশা করছেন৻

বিবিসি বাংলার মিজানুর রহমান খানকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে নূরুল হক বলেন গৃহকর্মীদের ওপর যুগ যুগ ধরে যে নিপীড়ন, নির্যাতন ও অন্যায় আচরণ চলে আসছে প্রস্তাবিত এই নীতিমালায় সেগুলো প্রতিকারের বিধান রাখা হচ্ছে৻

তিনি বলেন, একই সাথে গৃহকর্মীদের অধিকার নিশ্চিত করার জন্য কিছু রক্ষাকবচ এই নীতিতে সংস্থাপন করা হয়েছে৻

মিঃ হক বলছেন যেসব গৃহকর্মী কম বয়েসে কাজ করতে আসেন, তাদের লেখাপড়ার দায়িত্ব যেন গৃহকর্তা নেন এমন শর্ত তারা খসড়া নীতিমালার অন্তর্ভূক্ত করেছেন৻

তিনি আরো বলেন, যাদের গৃহকর্মে নিযুক্ত করা হবে তাদের রেজিস্ট্রেশনের ব্যবস্থা এই নীতিমালায় রাখা হচ্ছে৻ এছাড়াও গৃহকর্মীদের ছুটির বিষয়টি কর্মঘন্টা ও কর্মদিবসের ভিত্তিতে ঠিক করা হবে এবং তা পারস্পরিক ভিত্তিতে করার প্রস্তাব এই নীতিমালায় রাখা হচ্ছে বলে নূরুল হক জানান৻

শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব বলেন সঠিক একটি চুক্তির ভিত্তিতে গৃহকর্মীকে নিয়োগ করা হচ্ছে কীনা, স্থানীয় সরকারের সংস্থাগুলো এবং স্থানীয় প্রশাসনকে সেটা তত্ত্বাবধানের দায়িত্ব দেওয়া হবে৻ কেউ যদি অভিযোগ করতে চান, স্থানীয় প্রশাসনের কাছে তা করারও সুযোগ থাকবে৻

যে চুক্তির ভিত্তিতে গৃহকর্মীকে নিয়োগ করা হবে তার আওতায় নিয়োগকর্তা ও নিয়োগপ্রাপ্তের ওপর কিছু বাধ্যবাধকতা আসবে এবং এই চুক্তি কোন পক্ষ ভঙ্গ করলে প্রচলিত আইনের আওতায় শাস্তির বিধানও থাকবে বলে মিঃ হক জানান৻