ড. ইউনুসের পদত্যাগ নিয়ে বিভ্রান্তি

ড. মো. ইউনুস
Image caption ড. মো. ইউনুস

বাংলাদেশের সংবাদমাধ্যমে গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. মুহাম্মদ ইউনুসের পদত্যাগের খবর প্রকাশের পর এ নিয়ে একধরণের বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে৻

বাংলাদেশের কিছু সংবাদপত্রে অর্থমন্ত্রীর স্বাক্ষরসম্বলিত একটি কথিত অতি গোপনীয় সরকারি নথির ছবি ছাপা হয়েছে যাতে নোবেল শান্তি পুরস্কারজয়ী ড. ইউনুস গ্রামীণ ব্যাংক থেকে ইতিমধ্যেই পদত্যাগ করেছেন -- এমন কথা রয়েছে৻

কিন্তু গ্রামীণ ব্যাংকের একজন কর্মকর্তা এবং অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত উভয়েই বিবিসিকে বলেছেন যে এসব খবর সত্য নয়৻

ড: মুহাম্মদ ইউনুস গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন বলে যে খবর সংবাদ মাধ্যমে এসেছে, সেটা সত্য নয় বলে উল্লেখ করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত।

অন্যদিকে ড: ইউনুসের সাথে কথা বলার জন্য যোগাযোগ করা হলে গ্রামীণ ব্যাংকের একজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেছেন, যেহেতু ইতিমধ্যেই একটি বিবৃতি দিয়ে ড: ইউনুস জানিয়েছেন যে, তিনি গ্রামীণ ব্যাংক থেকে পদত্যাগ করেননি, ফলে বিষয়টিতে তিনি নতুন করে কথা বলবেন না বলে জানানো হয়েছে।

ড: মুহাম্মদ ইউনুসের পদত্যাগের এই খবর বৃহস্পতিবার প্রকাশ হয়েছিল বাংলা দৈনিক সমকাল এবং যুগান্তর পত্রিকায়।

শুক্রবার বাংলা দৈনিক কালের কন্ঠ এবং একই হাউজের দ্যা ডেইলী সান ও অন লাইন নিউজ এজেন্সি বাংলা নিউজ ২৪ এ পদত্যাগের ঐ খবর প্রকাশ হয়েছে।

এছাড়াও পদত্যাগের ঐ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে অর্থমন্ত্রী সংশ্লিষ্টদের বৈঠক ডেকেছেন, এমন একটি সরকারি নথিও পত্রিকাগুলোতে প্রকাশ করা হয়েছে, যেখানে অর্থমন্ত্রীর স্বাক্ষর থাকার কথা বলা হয়েছে।

তবে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত বলেছেন, এগুলো সব বাজে কথা ।

এমন কোন নথিতে তিনি কখনও স্বাক্ষর করেননি বলে উল্লেখ করেছেন। এর বাইরে তিনি আর কিছু বলেননি।

গ্রামীণ ব্যাংকের একজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেছেন, এ ধরনের নথির ব্যাপারে তাদের কোন ধারণা নেই।