লিবিয়ায় নেটো অভিযানের সমাপ্তি

নিরাপত্তা পরিষদ ছবির কপিরাইট BBC World Service
Image caption নিরাপত্তা পরিষদ

লিবিয়ায় 'নো-ফ্লাই জোন' এবং সামরিক অভিযান অনুমোদন করে নেয়া প্রস্তাবের কার্যকারিতা সমাপ্তির ঘোষণা করেছে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ।

লিবিয়ার বেসামরিক জনগণকে রক্ষার লক্ষ্যে সেদেশের আকাশসীমায় বিমান চলাচলের ওপর যে নিষেধাজ্ঞা জাতিসংঘ অনুমোদন করেছিল, তার অবসানের লক্ষ্যে নিরাপত্তা পরিষদের এক বৈঠকে বৃহস্পতিবার এক প্রস্তাব গৃহীত হয়।

আগামী সোমবার মধ্যরাতে এই নিষেধাজ্ঞা শেষ হবে। সেই সঙ্গে শেষ হবে লিবিয়ায় নেটো জোটের সাত মাসব্যাপী সামরিক অভিযান।

নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে লিবিয়ার প্রতিনিধি নিষেধাজ্ঞা অবসানের প্রস্তাবটিকে পিছিয়ে দেয়ার চেষ্টা করলেও সর্বসম্মত ভোটে প্রস্তাবটি পাশ হয়।

বৈঠকে লিবিয়ার দূত বলেন, তাঁর দেশের নিরাপত্তা ব্যবস্থা খতিয়ে দেখার জন্য অন্তর্বর্তী প্রশাসন এনটিসির আরও সময়ের প্রয়োজন।

এনটিসির নেতা মুস্তাফা আবদেল জলিল বলেন, গাদ্দাফি-অনুসারীদের পাল্টা হামলা থেকে সীমান্তকে রক্ষা করার জন্য চলতি বছরের শেষ নাগাদ পর্যন্ত তাদের নেটোর সাহায্যের প্রয়োজন রয়েছে।

Image caption স্যার মার্ক গ্র্যান্ট

জাতিসংঘে ব্রিটিশ দূত স্যার মার্ক লায়াল গ্র্যান্ট জানান, তারা বিষয়টি নিয়ে এনটিসির সাথে কথাবার্তা বলছেন।

কিন্তু তিনি জানান, গাদ্দাফি-পরবর্তী লিবিয়ায় মানবাধিকার রক্ষা দায়দায়িত্ব এনিটিসির, এবং জাতিসংঘ প্রস্তাবে সেই বিষয়েও ডাক দেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, ঐ প্রস্তাবে সকল ধরনের প্রতিশোধমূলক তৎপরতা, বিচার বহির্ভূত হত্যা, কারাগারে নিক্ষেপেরে মত ঘটনা বন্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে এনটিসির প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে।

ওদিকে কর্নেল গাদ্দাফিকে যেভাবে হত্যা করা হয়েছে তা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী ভ্লাদিমির পুতিন।

তিনি বলেন, তারা গাদ্দাফি পরিবারের প্রায় সব সদস্যকে হত্যা করেছে, এবং তার মৃতদহের ছবি দেখানো হয়েছে বিশ্বের সবগুলো টিভি চ্যানেলে।

''কিন্তু সেটা দেখলে আপনি বিচলিত হবেন এবং ক্ষুব্ধ হবেন। তাকে দেখানো হয়েছে আহত ও রক্তাক্ত অবস্থায়। কিন্তু তখনও তিনি প্রাণে বেঁচে ছিলেন। তাকে কীভাবে শেষ করা হয় তাই দেখানো হয়েছে চ্যানেলগুলিতে।''

খ্রীস্টধর্ম, ইহুদি ধর্ম কিংবা ইসলাম, কোন ধর্মমতের নৈতিকতার মধ্যেই এটা নেই বলে মি. পুতিন মন্তব্য করেন।