'দেয়াল' উপন্যাস নিয়ে আদালতের নির্দেশ

হুমায়ূন আহেমদ ছবির কপিরাইট bbc bangla
Image caption আদালত আশা প্রকাশ করেছে ভুল সংশোধন করে বইটি প্রকাশ করা হবে

বাংলাদেশে জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের লেখা দেয়াল নামের একটি উপন্যাস সংশোধন না করে তা প্রকাশের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে হাইকোর্ট।

এই উপন্যাসে দেশটির প্রতিষ্ঠাতা রাষ্ট্রপতি শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার ঘটনার বিবরণে তথ্যগত ভুল রয়েছে, এমন অভিযোগ রাষ্ট্রপক্ষের এটর্নি জেনারেল আদালতের নজরে এনেছিলেন।

আদালত উপন্যাসটি সংশোধনের নির্দেশ দেওয়ার প্রশ্নে কারণ দর্শানোর নোটিশও জারি করেছে।

তবে আদালত এই মর্মে আশা প্রকাশও করেছেন যে ওই ভুল সংশোধন করে বইটি প্রকাশ করা হবে।

কথা সাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের লেখা দেয়াল নামের উপন্যাসটি এখনো বই আকারে প্রকাশ হয়নি। এর অংশ বিশেষ দেশের একটি জাতীয় দৈনিকের সাহিত্য সাময়িকীতে প্রকাশ হয় গত এগারোই মে।

এ পর্যন্ত প্রকাশিত উপন্যাসের অংশের ভিত্তিতেই অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুব আলম হাইকোর্টের নজরে এনেছেন যে, উপন্যাসটিতে ইতিহাসের একটি ঘটনা তুলে ধরার ক্ষেত্রে তথ্যগত ভুল রয়েছে।

তিনি আদালতে জানিয়েছেন, বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা রাষ্ট্রপতি শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার ঘটনার বিবরণ তুলে ধরা হয়েছে এই উপন্যাসে। কিন্তু ঘটনার বর্ণনায় শেখ মুজিবের ছোট ছেলে শেখ রাসেলকে হত্যার বর্ণনা সঠিকভাবে দেওয়া হয়নি।

‘বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডে খন্দকার মোশতাক আহমেদ জড়িত ছিলেন বলে মামলার সাক্ষ্য প্রমাণে উঠে এসেছে। কিন্তু মোশতাক আহমেদ কিছুই জানতেন না, এমনটাই তুলে ধরা হয়েছে ঐ উপন্যাসে।’ মাহবুবে আলম বলেন সে কারণেই তিনি বিষয়টি আদালতের নজরে এনেছেন।

হাইকোর্টের একটি ডিভিশন বেঞ্চ উপন্যাসটির তথ্য সংশোধন করার নির্দেশ কেন দেওয়া হবে না, সেই মর্মে তথ্য ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিবের প্রতি কারণ দর্শানোর নোটিশ জারি করেছে।

এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেছেন, উপন্যাসে তথ্যগত ভুল সংশোধন না করা পর্যন্ত তা প্রকাশের উপরও নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। এছাড়া বিষয়টি নিয়ে লেখক হুমায়ূন আহমেদের সাথে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে এবং শেখ মুজিব হত্যা মামলার বিচারের পেপারবুকসহ সব কাগজপত্র তাঁকে দেওয়ার জন্যও নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

ছবির কপিরাইট BBC World Service
Image caption শেখ রাসেল

এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম অবশ্য উল্লেখ করেছেন, যে বিষয়টি একটি উপন্যাসে তুলে ধরা হয়েছে এবং একজন লেখক তাঁর নিজের দৃষ্টিভঙ্গি থেকে সে ঘটনা তুলে ধরতে পারেন।

তবে একইসাথে তিনি এটাও বলেন যে, শেখ মুজিবকে সপরিবারে হত্যার ঘটনার একটা স্বীকৃত বিবরণ রয়েছে এবং আদালতে ঘটনার বিচারও হয়েছে। সে কারণেই তিনি মনে করেন, হুমায়ূন আহমেদের লেখা দেয়াল উপন্যাসে তথ্যগত ভুল সংশোধন করা প্রয়োজন।

মাহবুবে আলম বলেছেন, ‘শেখ রাসেল সে সময় ছিল শেখ মুজিবের পিএ বা ব্যক্তিগত কর্মকর্তা মহিতুল ইসলামের কাছে বাড়ির নীচে। শেখ রাসেল মায়ের জন্য কান্নাকাটি করলে তাকে বাড়ির উপরতলায় নিয়ে হত্যা করা হয়েছিল। তার আগেই বাড়ির অন্যদের হত্যা করেছিল ঘাতকরা ।’

কিন্তু উপন্যাসটিতে লেখা হয়েছে, বাড়ির মেয়েদের সাথে থেকে শেখ রাসেল আলনার পাশে লুকালে, সেখান থেকে তাকে বের করে এনে ঘাতকরা হত্যা করে।

এটি সঠিক তথ্য নয় বলে এটর্নি জেনারেল উল্লেখ করেন।

এদিকে ক্যান্সারে আক্রান্ত লেখক হুমায়ূন আহমেদ যুক্তরাষ্ট্রে চিকিৎসার মাঝে কয়েকদিন আগে দেশে এসেছেন কিছুদিনের জন্য। হুমায়ূন আহমেদ বিবিসিকে বলেছেন, তিনি আদালতের কোন নোটিশ বা কাগজপত্র পাননি। ফলে তিনি এখন কিছু বলতে পারছেন না।