তাপমাত্রা বাড়ার দায় মানুষের: জাতিসংঘ প্যানেল

ipcc meet
Image caption স্টকহোমে আইপিসিসির বৈঠকে ভিডিও লিংকে ভাষণ দেন জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন।

জাতিসংঘের বিজ্ঞানীরা তাদের নতুন এক রিপোর্টে বলছেন তারা এখন আগের থেকে অনেক বেশি নিশ্চিত যে বিশ্বের তাপমাত্রা বৃদ্ধির জন্য মানুষই দায়ী ।

আইপিসিসি বা জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক জাতিসংঘ প্যানেল বলছে ১৯৫০-এর পর থেকে বিশ্বের তাপমাত্রা বৃদ্ধির হার নজিরবিহীন।

সুইডেনে গত এক সপ্তাহ ধরে ব্স্তির আলোচনা বিতর্কের পর আইপিসিসি যে রিপোর্ট শেষ পর্যন্ত প্রকাশ করেছে, তাতে আতঙ্কিত হওয়ার যথেষ্ট কারণ রয়েছে।

এই গবেষণার সাথে সংশ্লিষ্ট বিজ্ঞানীরা বলছেন, বিশ্বের তাপমাত্রা বাড়ার পেছনে প্রধানত মানুষের কর্মকাণ্ডই যে দায়ী সেটা শতভাগ না হলেও ৯৫ শতাংশ তারা নিশ্চিত।

জাতিসংঘ প্যানেলের রিপোর্টে সাগরে, বাতাসে, মাটিতে তাপমাত্রা বাড়ার নানা প্রমাণ দেয়া হয়েছে।

তবে ১৯৯৮ সালের পর থেকে তাপমাত্রা বৃদ্ধির প্রবণতা থমকে যাওয়ার যে দাবি কিছু বিজ্ঞানী করছেন, সে বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়া হয়েছে আইপিসিসি'র রিপোর্টে।

হুশিয়ার করা হয়েছে, পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর গ্যাস বা গ্রীনহাউস গ্যাসের নিঃসরণ কমানো না গেলে তাপমাত্রা বিপজ্জনক হারে বাড়তে থাকবে এবং ক্রমে জলবায়ু ব্যবস্থা ওলটপালট হয়ে পড়বে।

সংবাদ সম্মেলনে আইপিসিসির চেয়ারম্যান রাজেন্দ্র পাচৌরি বলেন, পঞ্চাশের দশক থেকে গত কয় দশকে জলবায়ুতে যে সব পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাচ্ছে তা নজিরবিহীন। "বায়ুমণ্ডল এবং মহাসাগরগুলোতে তাপ বাড়ছে। বরফ গলছে। সমুদ্রের পানির উচ্চতা বাড়ছে। সেই সাথে বাড়ছে গ্রীনহাউস গ্যাস। আমাদের কর্মকাণ্ডের ফলে পরিবেশে যা ঘটছে, এটাই তার সারসংক্ষেপ।"

মি পাচৌরি যে বিষয়টিতে বিশেষ দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তা হল, গত তিন দশক ধরে ভূপৃষ্ঠের তাপমাত্রা যে মাত্রায় বাড়ছে সেটা ১৮৫০ সালের পরের দশকগুলোর যে কোনটির চেয়ে বেশি।

এর পরিণতি কি হবে, সে প্রসঙ্গে আইপিসিসির যুগ্ম চেয়ারম্যান অধ্যাপক থমাস স্টকার বলেন, এই তাপমাত্রা মানুষ এবং পরিবেশের প্রধান দুই উপাদান -- মাটি এবং পানির জন্য হুমকি তৈরি করেছে।

বলা হচ্ছে গত ১৪০০ বছরের মধ্যে ভূপৃষ্ঠের তাপমাত্রা এখন সবচেয়ে বেশি। সাবধান করা হয়েছে ১৮৫০ থেকে ১৯০০ সালের গড় তাপমাত্রার তুলনায় এ শতকের শেষ নাগাদ বিশ্বের তাপমাত্রা ১.৫ শতাংশ বেড়ে যাবে। হুঁশিয়ার করা হয়েছে এই শতাব্দী শেষ নাগাদ সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা ৮০ সেন্টিমিটারের বেশি বৃদ্ধি পেতে পারে।

আইপিসিসির রিপোর্টে বলা হচ্ছে, পঞ্চাশের দশক থেকে তাপমাত্রা বাড়ার পেছনে যে সমস্ত কারণ বিজ্ঞানীরা খুঁজে পেয়েছেন তার অর্ধেকেরও বেশি মানুষের সৃষ্টি।

উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন। বলেছেন, তাপমাত্রার বৃদ্ধি কমাতে রাজনৈতিক অঙ্গীকারের জন্য আগামী বছর সেপ্টেম্বরে তিনি একটি আন্তর্জাতিক বৈঠক ডাকবেন।