হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে বিএনপি এগিয়ে

ছবির কপিরাইট Focus Bangla
Image caption বাংলাদেশে ৫ই জানুয়ারির বিতর্কিত জাতীয় নির্বাচনে অনেকেই ভোট দিতে না পারায় গতকালের উপজেলা নির্বাচনে ভোটারদের মধ্যে দেখা গেছে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা।

বাংলাদেশে গতকাল অনুষ্ঠিত নির্দলীয় উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অনানুষ্ঠানিক-ভাবে অংশ নেয়া বড় দুই দল আওয়ামীলীগ ও বিএনপির মধ্যে শেষ পর্যন্ত হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হয়েছে।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত সাতানব্বইটি উপজেলায় বিজয়ী চেয়ারম্যানদের মধ্যে বিএনপি সমর্থিতরাই বেশী।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলোর খবর অনুযায়ী গভীর রাত পর্যন্ত অন্তত ৯৬টি উপজেলার চেয়ারম্যান প্রার্থীর বেসরকারি ফলাফল পাওয়া গেছে।

ফলাফল বিশ্লেষণে দেখা গেছে, বিএনপি সমর্থিত চেয়ারম্যানরা জিতেছে ৪০টি উপজেলায়, আওয়ামীলীগ সমর্থিতরা জিতেছে ৩৪টি উপজেলায়, এমনকি নিবন্ধন বাতিল হওয়া দল

জামায়াতে ইসলামী সমর্থিত চেয়ারম্যানও জয় পেয়েছে ১২টি উপজেলায়।

অন্যদিকে বাংলাদেশের সংসদে বর্তমান বিরোধী দল জাতীয় পার্টি সমর্থিত চেয়ারম্যান জয় পেয়েছে মোটে একটি উপজেলায়।

আর বাকি নয়টি উপজেলায় বিদ্রোহী, স্বতন্ত্র এবং অন্যান্য দল ও গোষ্ঠী সমর্থিতরা জিতেছে।

গত ৫ই জানুয়ারি অনুষ্ঠিত একতরফা ও বিতর্কিত সংসদ নির্বাচনের রেশ না কাটতেই দেড় মাসের মাথায় উপজেলা নির্বাচনে ছিল ভিন্নচিত্র।

আওয়ামী লীগ এবং বিএনপি সহ সব দলের সরাসরি তৎপরতায় সারাদেশেই বইছে নির্বাচনী হাওয়া।

প্রথম ধাপে ৪০টি জেলার ৯৭টি উপজেলায় ভোট গ্রহণে ভোটারদের উৎসাহে কমতি ছিলনা।

স্থানীয় নির্বাচন হলেও এ উপজেলা নির্বাচন দেশীয় পর্যবেক্ষকদের পাশাপাশি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপের বিভিন্ন দেশের পক্ষ থেকে পর্যবেক্ষণ করা হয়েছে।

মার্কিন রাষ্ট্রদূত রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলায় ভোট গ্রহণ পরিদর্শন করেছেন। তবে তিনি কোন মন্তব্য করেননি।

অন্যদিকে প্রধান দুটি দল মাঠ পর্যায়ে যেমন তৎপর ছিল।

ভোট গ্রহণের সময় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী দু-দফায় সংবাদ সম্মেলন করে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে ভোট কারচুপির নানা অভিযোগ তুলেছেন।

কারচুপির অভিযোগে কয়েকটি উপজেলায় ভোট গ্রহণের মাঝামাঝি সময়ে নির্বাচন বয়কট করেছেন বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীরা।

এরকম আটটি উপজেলায় আজ হরতাল পালন করছে বিএনপি।

তবে আওয়ামীলীগ কারচুপির অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

এই খবর নিয়ে আরো তথ্য