ভারতে স্যানিটারি প্যাড বিপ্লবের নেপথ্য নায়ক

ছবির কপিরাইট BBC World Service
Image caption নিজের উদ্ভাবিত যন্ত্রের পাশে অরুণাচালাম মুরুগানানথাম

তাকে বর্ণনা করা হয় ভারতে স্যানিটারি প্যাড বিপ্লবের নেপথ্য নায়ক হিসেবে। দক্ষিণ ভারতের এক দরিদ্র পরিবারের সন্তান অরুণাচালাম মুরুগানানথাম এমন একটি সাধারণ যন্ত্র আবিস্কার করেছেন, যা ভারতের দরিদ্র নারীদের এক অস্বস্তিকর সমস্যার সহজ সমাধান এনে দিয়েছে।

ভারতের পশ্চাৎপদ রাজ্যগুলিতে হাজার হাজার দরিদ্র নারী এখন ব্যবহার করেন তার উদ্ভাবিত যন্ত্রে তৈরি কম খরচের স্যানিটারি প্যাড। দরিদ্র মেয়েদের স্বাস্থ্য এবং পরিচ্ছন্নতায় তার তৈরি যন্ত্র যে অবদান রেখেছে, তাকে স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা বিপ্লব বলেই বর্ণনা করছেন।

অরুণাচালাম মুরুগানানথামের কাহিনীর শুরু ১৯৯৮ সালে। সদ্য বিয়ে করেছেন। স্ত্রী শান্তি এবং বিধবা মা কে নিয়ে তার ছোট্ট সংসার।

একদিন দেখলেন, স্ত্রী তাঁর কাছ থেকে কিছু একটা লুকোনোর চেষ্টা করছে। যখন দেখলেন, তার স্ত্রী আসলে প্রতিমাসে রজস্রাবের সময় একটা নোংরা ন্যাকড়া ব্যবহার করে নিজেকে পরিস্কার রাখার চেষ্টা করছে, বড় ধাক্কা খেলেন তিনি। স্ত্রী শান্তি জানালেন, টাকা খরচ করে স্যানিটারি প্যাড কেনার সাধ্য তার নেই।

পরের মাসে স্ত্রীর জন্য শহর থেকে নিজেই স্যানিটারি প্যাড কিনে আনলেন অরুণাচালাম। কিন্তু তিনি বুঝতে পারছিলেন না, কাপড়ে মোড়ানো দশ গ্রাম তুলার একটি প্যাডের দাম কেন এত দাম হবে। কেন এটি আরও সস্তায় তৈরি করা যাবে না।

ছবির কপিরাইট BBC World Service
Image caption অরুণাচালামের তৈরি মেশিন দিয়ে স্যানিটারি প্যাড তৈরি করছেন গ্রামের মহিলারা

অরুণাচালাম খোঁজ খবর নিয়ে জানতে পারলেন, শুধু তার স্ত্রী নন, গ্রামের বেশিরভাগ মেয়েদেরই আসলে স্যানিটারি প্যাড কেনার সাধ্য নেই। সেদিন থেকে কিভাবে কম খরচে দরিদ্র মেয়েদের জন্য স্যানিটারি প্যাড তৈরি করা যায়, সেই সাধনায় নামলেন তিনি।

অনেক চেষ্টা, অনেক পরিশ্রম আর গবেষণার পর স্যানিটার প্যাড তৈরি যে মেশিন অরুণাচালাম উদ্ভাবন করেন, সেটি জাতীয় পুরস্কার পেল। ভারতের সাবেক প্রেসিডেন্ট প্রতিভা পাতিলের হাত থেকে এই পুরস্কার গ্রহণ করে সবার নজরে এলেন তিনি।

ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে এখন ব্যবহৃত হচ্ছে অরুণাচালামের স্যানিটারি প্যাড তৈরির মেশিন। এ পর্যন্ত আড়াইশো মেশিন তৈরি করেছেন তিনি। গ্রামের দরিদ্র মহিলারাই এসব মেশিনে স্যানিটারি প্যাড তৈরি করছেন, সেই প্যাড তারা বিক্রি করছেন গ্রামের মহিলাদের কাছেই।

মূলত বিভিন্ন এনজিও এবং স্বনির্ভর সংস্থা অরুণাচালামের মেশিন কিনে দিয়ে দরিদ্র মহিলাদের নিজের পায়ে দাঁড়াতে সাহায্য করে। প্রতিটি মেশিনে কাজ করেন দশ জন করে মহিলা। তার মেশিনে উৎপাদিত স্যানিটারি প্যাডের দাম বাজারের অন্য বড় কোম্পানীগুলোর প্যাডের তুলনায় অনেক কম। গড়ে প্রতিটির দাম পড়ে আড়াই রুপী।