সংলাপ শুরু করুন, নইলে আন্দোলন: খালেদা

ছবির কপিরাইট Focus Bangla

বাংলাদেশে একটি নতুন নির্বাচনের লক্ষ্যে সংলাপে বসার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া।

আজ ঢাকায় প্রকৌশলীদের এক অনুষ্ঠানে খালেদা জিয়া অভিযোগ করেন যে সংলাপের ব্যাপারে নির্বাচনের আগে যে অঙ্গীকার সরকার করেছিল, সেটি তারা ভঙ্গ করেছে।

খালেদা জিয়া বলেন, “আওয়ামী লীগ সভানেত্রী গত ৫ই জানুয়ারীর নির্বাচনকে সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার নির্বাচন বলেছিলেন। তিনি বলেছিলেন, এরপরও আলোচনা চলবে এবং একটি সমঝোতা হলে সংসদ ভেঙ্গে দিয়ে নতুন নির্বাচন করা যাবে।”

“এখন সেই অঙ্গীকার ভুলে গিয়ে তিনি আলোচনা ও সংলাপে বসতে অস্বীকার করছেন।”

খালেদা জিয়া হুঁশিয়ারি দেন যে, সরকার যদি সংলাপে না বসে তাহলে বিএনপি আবার রাজপথের আন্দোলন শুরু করবে।

তিনি বলেন,“আমি আবার তাদের আলোচনা ও সংলাপের পথে ফিরে আসার আহ্বান জানাচ্ছি। তবে বাংলাদেশের মানুষ এরকম একটি সংলাপের জন্য অনির্দিষ্টকালের জন্য বসে থাকবে বলে মনে করি না।”

“আমরা দেশে অশান্তি, সংঘাত, অস্থিরতা এবং রাজপথের উত্তাল আন্দোলনে সহসা যেতে চাই না। তবে সব পথ বন্ধ করে দিলে রাজপথ বেছে নেয়া ছাড়া পথ থাকবে না।”

খালেদা জিয়া আরও বলেন, সরকার যেভাবে বাংলাদেশে বিরোধীদের ওপর দমন-নিপীড়ন চালাচ্ছে তাতে উগ্রবাদী শক্তির উত্থানের আশংকা আছে।

তিনি বলেন, এ অবস্থা বেশিদিন চললে বাংলাদেশ সহ পুরো অঞ্চলের স্থিতিশীলতাই হুমকির মুখে পড়বে।

এদিকে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা এবং শিল্প মন্ত্রী আমির হোসেন আমু খালেদা জিয়ার বক্তব্যের জবাবে বলেছেন, নির্বাচিত সংসদ ভেঙ্গে নতুন নির্বাচনের প্রতিশ্রুতি সরকার কখনো দেয়নি।

“কোন প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়নি যে আমরা ধারাবাহিকতা রক্ষার জন্যই শুধু নির্বাচনটা করছি, পরে আরেকটা করবো। এমনটি জাতিসংঘ প্রতিনিধির মধ্যস্থতায় দুই দলের মধ্যে ঢাকায় যে আলোচনা হয়েছে সেখানেও এরকম কোন প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়নি।”