আইএসের হাতে জিম্মি ৪৯ জন তুর্কী উদ্ধার

ছবির কপিরাইট AFP
Image caption উদ্ধারপ্রাপ্ত জিম্মিদের নিয়ে বিমানে উঠছেন তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী আহমেত ডভুটগলু (বামে)

তুরস্কের ইতিহাসের সবচাইতে ভয়াবহ জিম্মি সংকটের অবসান হল অবশেষে।

তিনমাস আগে ইসলামিক স্টেট জঙ্গিরা উত্তর ইরাকের তুর্কী কনসুলেট থেকে যে ৪৯ জনকে জিম্মি করে নিয়ে গিয়েছিলো তাদেরকে মুক্ত করে দেশে ফিরিয়ে আনা হয়েছে।

তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী আহমেত ডভুটগলু বলেছেন, তুর্কী গোয়েন্দা সংস্থা একটি অভিযান চালিয়ে এদেরকে উদ্ধার করেছে।

অবশ্য এ ব্যাপারে বিস্তারিত আর কোনও তথ্য তিনি জানাননি।

শনিবারই ৪৯ জন জিম্মিকে দেশে ফিরিয়ে আনা হয়।

গত জুন মাসে ইরাকের মসুলে তুর্কী কনসুলেট থেকে ইসলামিক স্টেট জঙ্গিরা এদেরকে অপহরণ করে নিয়ে যায়।

অপহৃতদের মধ্যে তুরস্কের কনসাল জেনারেলও ছিলেন।

আইএসের বিরুদ্ধে মার্কিন নেতৃত্বাধীন সামরিক জোটে তুরস্কের যোগ না দেয়া, অভিযানে অংশ নিতে রাজী না হওয়া এবং বিমান হামলার জন্য তুরস্কের ঘাঁটি ব্যবহার করতে না দেবার পেছনে এই জিম্মি সংকটকেই কারণ বলে মনে করা হয়।

অবশ্য সিরিয়া ও ইরাকের সাথে ঝুঁকিপূর্ণ সীমান্ত থাকা এবং নিজস্ব ভূমিতে জঙ্গিদের অবস্থান থাকবার কারণে তুরস্ক এসব অভিযানে যোগ দিতে অনিচ্ছুক বলেও ধারনা প্রচলিত রয়েছে।

ফলে জিম্মিদের উদ্ধার করবার পরেও যে আইএস বিরোধী যুদ্ধে তুরস্ক অংশ নেবে, তেমনটি ঘটবার খুব কমই আশা রয়েছে।

তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী আহমেত ডভুটগলু উদ্ধারকৃত ৪৯ জন জিম্মির সঙ্গে দেখা করতে দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর স্যানলিউরফায় পৌঁছেছেন।

আইএস জঙ্গিরা তিনজন পশ্চিমা জিম্মিকে শিরচ্ছেদ করে হত্যার পর এই ৪৯ জন জিম্মিকে জীবিত উদ্ধার করবার ঘটনায় তুরস্কে ব্যাপক স্বস্তি নেমে এসেছে।