অবরোধের প্রথম দিনে বিক্ষিপ্ত সহিংসতা

ছবির কপিরাইট focus bangla
Image caption অবরোধ চলাকালে রাজধানী ঢাকার একটি সড়ক

বাংলাদেশে ৫ই জানুয়ারি নির্বাচনের বর্ষপূর্তিকে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক উত্তাপ আরো ছড়িয়েছে।

ঢাকায় সমাবেশ করতে না দেয়ায় বিরোধী দল বিএনপি পালন করছে লাগাতার অবরোধ কর্মসূচি, সেই সাথে সরকারও তাদের অবস্থান আরো কঠোর করার ইঙ্গিত দিচ্ছে।

অবরোধের প্রথম দিনেই আজ মঙ্গলবার দুপুরের পর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

মি. আলমগীর ঢাকায় জাতীয় প্রেসক্লাবে একদিন আশ্রয় নেওয়ার পর সেখান থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় গোয়েন্দা পুলিশ তাকে আটক করেছে।

দলের চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া আজও তার কার্যালয়ে কার্যত অবরুদ্ধ হয়ে রয়েছেন।

বিরোধীদের অবরোধ কর্মসূচিতে দেশের বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষিপ্তভাবে সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে।

ছবির কপিরাইট focus bangla
Image caption ঢাকায় চারটি বাসে অগ্নিসংযোগ

দেশের কয়েকটি স্থানে যানবাহনে অগ্নিসংযোগের খবর পাওয়া গেছে।

বিক্ষিপ্ত সহিংসতা হয়েছে চাঁদপুর, চট্টগ্রাম ও সিলেটসহ কয়েকটি জায়গায়।

রাজধানী ঢাকায় চারটি বাসে ও দুটি প্রাইভেট কারে আগুন দেওয়া হয়।

শহরে কিছু যানবাহন চলাচল করলেও দূরপাল্লার বাস চলেনি বলে পরিবহন মালিকরা জানিয়েছেন।

এদিকে, বিরোধীদের এই কর্মসূচির বিরুদ্ধে সরকারের কঠোর অবস্থানের ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে।

ছবির কপিরাইট focus bangla
Image caption দূরপাল্লার বাস না চলায় যাত্রীরা আটকা পড়েছেন

সরকারের মুখপাত্র তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু সংবাদ সম্মেলন করে বলেছেন যে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে হত্যা মামলাও হতে পারে।

সংবাদদাতারা বলছেন, খালেদা জিয়াকে যে নিরাপত্তা বাহিনী অবরুদ্ধ করে রেখেছে সেটা শিথিল করারও কোনো লক্ষণ নেই।

মি. আলমগীরকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে তার নির্বাচনী এলাকা ঠাকুরগাঁওয়ে আজ বিকেল থেকে আগামীকাল বুধবার সন্ধ্যা পর্যন্ত হরতাল ডাকা হয়েছে।

রংপুর বিভাগের আটটি জেলায় সারাদিনের হরতাল ডাকা হয়েছে আগামীকাল।

এই গ্রেফতারের নিন্দা করে খালেদা জিয়া এক বিবৃতিতে তার নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেছেন।

বিবৃতিতে খালেদা জিয়া অভিযোগ করেন, সরকার গ্রেফতারের মহোৎসবে মেতে উঠেছে।

চিঠিপত্র: সম্পাদকের উত্তর