দ: আফ্রিকায় বিদেশীদের ওপর হামলার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ

ছবির কপিরাইট AFP
Image caption বিদেশীদের ওপর হামলার প্রতিবাদ

দক্ষিণ আফ্রিকায় সাম্প্রতিক সময়ে বিদেশীদের ওপর হামলার ঘটনা বেড়ে যাওয়ার পর এর বিরুদ্ধে আজ বৃহস্পতিবার পূর্বাঞ্চলীয় শহর ডারবানে হাজার হাজার মানুষ এক বিক্ষোভ মিছিলে অংশ নিয়েছে।

কেবল গত সপ্তাহেই দক্ষিণ আফ্রিকায় অভিবাসীদের ওপর হামলায় অন্তত পাঁচজন নিহত হয়েছে। প্রচুর দোকান পাট ও ঘরবাড়ি লুঠ হয়েছে।

অভিবাসীরা এসে স্থানীয়দের কাজ নিয়ে নিচ্ছে, এমন অভিযোগ তুলে তাদের বিরুদ্ধে এসব হামলা চালানো হচ্ছে।

প্রেসিডেন্ট জেকব যুমা বিদেশীদের বিরুদ্ধে এই সহিংসতার নিন্দা করেছেন এবং আজ পরের দিকে পার্লামেন্টে ভাষণ দেবেন বলে কথা রয়েছে।

আয়োজকরা আশা করছেন অন্তত হাজার দশের লোক ডারবানে আজকের এই প্রতিবাদ বিক্ষোভে অংশ নেবে।

উপকূলীয় এই শহরে গত কয়েক সপ্তাহে বিদেশীদের ওপর একের পর এক হামলা হয়েছে, তাতে ভয়ের সাথে সাথে তৈরি হয়েছে ক্ষোভ।

এর আগে ২০০৮ সালে বিদেশীদের ওপর হামলায় অন্তত ৬২ জনের মুত্যু হয়েছিল। ফলে নতুন দফা এই হামলার কারণে আতঙ্কে অনেক বিদেশী দক্ষিণ ছেড়ে চলে যাচ্ছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

ছবির কপিরাইট AFP
Image caption জোহানেসবার্গে বিদেশী ও স্থানীয়দের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটছে (ফাইল চিত্র)

মালাউয়ির সরকার জানিয়েছে, তারা তাদের নাগরিকদের সরিয়ে নেবে। মোজাম্বিক তাদের পালিয়ে আসা নাগরিকদের জন্য সীমান্তে শিবির খুলেছে।

সহিংসতা ডারবানেও বাইরে অন্যান্য শহরে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা বাড়ছে। জোহানেসবার্গে ইথিওপিয়, এবং সোমালীয়রা লুঠপাটের ভয়ে তাদের দোকান বন্ধ রাখছে।

১৯৯৪ সালে দক্ষিণ আফ্রিকায় শেতাঙ্গ বর্ণবাদী শাসনের অবসানের পর থেকে আফ্রিকা এবং এশিয়া থেকে লাখ লাখ লোক কাজের খোঁজে সেখানে হাজির হয়েছে। কৃষ্ণাঙ্গ দক্ষিণ আফ্রিকানদের অভিযোগ বিদেশীরা এসে তাদের কাজ নিয়ে নিচ্ছে।

এ মুহুর্তে দক্ষিণ আফ্রিকায় বেকারত্বের হার ২৪ শতাংশ অর্থাৎ কর্মক্ষম মানুষের ২৪ জনই বেকার।

জুলু সম্প্রদায়ের রাজা বা গোষ্ঠী প্রধানকে বিদেশীদের বিরুদ্ধে এই দাঙ্গায় উস্কানি দেওয়ার অভিযোগ তোলা হয়েছে, যদিও তিনি তা অস্বীকার করেছেন।

তবে দক্ষিণ আফ্রিকার মানবাধিকার কমিশন বিবিসিকে জানিয়েছে, তারা জুলু রাজার বিরুদ্ধে ভাষণ দিয়ে বিদেশীদের বিরুদ্ধে সহিংসতা উস্কে দেওয়ার অভিযোগ তদন্ত করবে।