'মূল সমস্যা মানব-পাচার, শুধু রোহিঙ্গা ইস্যু দায়ী নয়'

ছবির কপিরাইট EPA
Image caption ইন্দোনেশিয়ায় আচের ক্যাম্পে উদ্ধার হওয়া বাংলাদেশি ও রোহিঙ্গা অভিবাসন প্রত্যাশীরা

এশিয়ার অভিবাসন সঙ্কট নিয়ে আলোচনার জন্য থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাঙ্ককে সতেরটি দেশের প্রতিনিধিরা বৈঠক করছেন।

ঝুঁকি নিয়ে অভিবাসনের আশায় আন্দামান সাগর পাড়ি দিচ্ছে হাজার হাজার যেসব মানুষ তাদের বেশিরভাগই মিয়ানমারের রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠি এবং বাকিরা বাংলাদেশি।

এই বৈঠকে জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সহকারী হাইকমিশনার ভল্কার টার্ক মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের দুরাবস্থা সম্পর্কে অভিযোগ তুলে বলেন মিয়ানমার সরকারকে তার দেশের সব জনগণের পূর্ণ দায়িত্ব নিতে হবে। মিয়ানমার সরকার রোহিঙ্গাদের সেদেশের নাগরিক হিসাবে স্বীকার করে না।

কিন্তু জাতিসংঘের এই অভিযোগের জবাবে মিয়ানমারের প্রতিনিধি তিন্ লিন্ বলেন এর দায়িত্ব শুধু মিয়ানমারের একার নয়- ''শুধু মিয়ানমারের দিকে আঙুল তুললে চলবে না- এখানে মূল সমস্যা মানব পাচারের।''

ছবির কপিরাইট epa
Image caption বিপদের ঝুঁকি নিয়ে আন্দামান সাগরে পাড়ি জমাচ্ছেন হাজার হাজার রোহিঙ্গা ও বাংলাদেশি

বৈঠক থেকে বিবিসির সংবাদদাতা জনাথান হেড জানাচ্ছেন থাই কর্তৃপক্ষ মানবপাচার চক্রগুলোর কর্মকান্ড কঠোর হাতে দমন করার উদ্যোগ নেওয়ার পর আন্দামান সাগরে ভাসমান হাজার হাজার অভিবাসন প্রত্যাশীর সঙ্কটের চিত্র প্রকাশ পায় এবং এই পটভূমিতে দুই সপ্তাহ আগে থাইল্যান্ড এই সঙ্কট নিয়ে আলোচনার জন্য বৈঠক ডাকে।

বৈঠকে থাইল্যান্ডের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জেনারেল তানাাসাক্‌ পাতিমাপ্রাগর্ন বলেন মিয়ানমারে নির্যাতন এড়াতে রোহিঙ্গারা এবং দারিদ্র থেকে পালাতে মরীয়া বাংলাদেশিরা যে বিপদসঙ্কুল পথে অভিবাসনের দিকে ঝুঁকছে তার মূল কারণগুলো সমাধানে তিনি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহযোগিতা চেয়েছেন।

জেনারেল তানাসাক বলেছেন এই সঙ্কট কোনো একটা দেশের পক্ষে একা সমাধান করা সম্ভব নয় এবং মানব পাচার বন্ধ করতে একটা সম্বন্বিত উদ্যোগ প্রয়োজন।