ফেসবুক বন্ধ: বাংলাদেশে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন অনেকেই

facebook ছবির কপিরাইট AFP

বাংলাদেশে সরকারী নির্দেশে এক সপ্তাহ ধরে ফেসবুক বন্ধ রাখার কারণে জনপ্রিয় এই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের ব্যবহারকারীদের অনেকে এখন আর্থিক ক্ষতির মুখোমুখি হতে শুরু করেছেন।

ফেসবুক ব্যবহার করে ব্যবসা করেন এমন অনেকে অভিযোগ করছেন যে তাদের ব্যবসা মোটামুটি বসে গেছে।

আবার অনলাইনে সংবাদ পরিবেশনকারীরা বলছেন, ফেসবুক না থাকার কারণে তাদের পেজে ভিজিটরের সংখ্যা দারুণভাবে কমে গেছে।

সরকার অবশ্য বলছে না যে ঠিক কবে বাংলাদেশের ব্যবহারকারীরা আবারো ফেসবুকের সাইটে প্রবেশ করতে পারবেন।

যুদ্ধাপরাধের দায়ে ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী ও আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের আপীলের রিভিউর রায় সুপ্রীম কোর্ট যেদিন ঘোষণা করেছিল, সেই দিন অর্থাৎ গত বুধবার থেকে বাংলাদেশের মানুষ সহজপথে ফেসবুক ব্যবহার করতে পারছেন না।

ঐদিন সরকার ফেসবুক সহ জনপ্রিয় কয়েকটি মেসেজিং সাইটে প্রবেশ বন্ধ করতে ইন্টারনেট সার্ভিস দেয়ার প্রতিষ্ঠানগুলোকে নির্দেশ দেয়।

প্রযুক্তিতে দক্ষ কিছু ব্যবহারকারী বিকল্পপথে ফেসবুকে ঢুকতে পারছেন, এমনটা বলা হলেও বেশীরভাগ ব্যবহারকারী একটি সপ্তাহ কাটিয়েছেন ফেসবুক ছাড়া।

এদের একজন আফরিনা জোহা উপমা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স পরীক্ষা দেয়া উপমা দিনের একটা লম্বা সময় কাটান ফেসবুকে।

"ফেসবুকে থাকে কোন না কোনভাবে মন ভালো হয়ে যায়, এটা বন্ধ থাকায় মনটাও ভালো থাকছে না।" বলেন তিনি।

ফেসবুক ব্যবহারকারীদের যেসব পরিসংখ্যান পাওয়া যায়, তাতে দেখা যাচ্ছে প্রায় এক কোটি সত্তর লক্ষ বাংলাদেশীর নামে ফেসবুক অ্যাকাউন্ট রয়েছে। আর এদের প্রায় অর্ধেক বয়স ১৮ থেকে ৩০-এর কোঠায়।

ছবির কপিরাইট AFP

আর এদের টার্গেট করে বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান বাণিজ্যিক কর্মকাণ্ডও চালাচ্ছে। বিদেশী পণ্য ডট কম নামের একটি প্রতিষ্ঠান বিক্রি করে নানা রকম পণ্য, যার মধ্যে রয়েছে ইলেকট্রনিকস ও পোশাক। এর বিপনন কর্মকর্তা মুরতাদা বিন আল-রাধিন বলছেন, তাদের প্রায় শতভাগ অর্ডার আসে ফেসবুকের মাধ্যমে ।

তিনি বলছেন, "ফেসবুকের মাধ্যমে যে ব্যবসাটা হতো তা এখন একদম শূন্যে নেমে এসেছে।"

বেশীরভাগ ব্যবহারকারী ফেসবুকে ঢুকতে না পারার থাকার কারণে সমস্যায় পড়েছে অনলাইন গণমাধ্যমগুলোও।

বেসরকারী টেলিভিশন এনটিভি’র অনলাইনের দায়িত্বে রয়েছেন ফখরুদ্দিন জুয়েল, তার কথায়, "আমরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি আমাদের ট্রাফিক কমে যাচ্ছে।"

খুব সহজ একটি যোগাযোগ মাধ্যম হওয়ার কারণে বাংলাদেশে ফেসবুকের ব্যবহার খুব দ্রুত বেড়েছে। এর ওপর নির্ভরতাও বেড়েছে।

তবে কৃষিপণ্যের ওয়েবসাইট আমার দেশ আমার গ্রামের প্রধান নির্বাহী সাদেকা হাসান পরামর্শ দিচ্ছেন, ব্যবসা-বাণিজ্যের জন্যে ফেসবুকের ওপর নির্ভরতা কমানো দরকার।

কোন রকম বিকল্প পথে না গিয়ে বাংলাদেশের মানুষ আবার কবে ফেসবুক ব্যবহার করতে পারবে, সে বিষয়টি এখনো পরিস্কার নয়।

সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান আজ বলেছেন, দেশের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি এখন স্বাভাবিক রয়েছে, ফলে শিগগির ফেসবুক খুলে দেয়া হবে।

কিন্তু এই শিগগির কত তাড়াতাড়ি, সে সম্পর্কে অবশ্য তিনি কোন ধারণা দেননি।