টাইম ম্যাগাজিনের ২০১৫র সেরা ব্যক্তিত্ব এঙ্গেলা মেরকেল

টাইম ম্যাগাজিন সাময়িকীর ২০১৫ সালের সেরা ব্যক্তিত্ব নির্বাচিত হয়েছেন জার্মান চান্সেলার এঙ্গেলা মেরকেল।

সাময়িকীটির চূড়ান্ত বাছাইয়ের তালিকায় ছিলেন আইএস নেতা আবু বকর আল বাগদাদি, ভ্লাদিমির পুতিন, ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং উবার ট্যাক্সি কোম্পানির প্রধান ট্রাভিস কালানিক। এদের পেছনে ফেলে শীর্ষ ব্যক্তিত্ব নির্বাচিত হয়েছেন এঙ্গেলা মেরকেল।

১৯২৭ সালের পর থেকে মিসেস মেরকেল নিয়ে মাত্র চারজন মহিলা সেরা ব্যক্তিত্বের সম্মান পেলেন।

টাইম ম্যাগাজিন ইউরোপের অভিবাসন সংকট এবং ঋণ সমস্যা মোকাবেলায় মিসেস মেরকেলের নেতৃত্বের প্রশংসা করেছে।

সাময়িকীর সম্পাদক ন্যান্সি গিবস্‌ বলেছেন মিসেস মেরকেল ''নৈতিক দৃষ্টিকোণ থেকে যেভাবে নেতৃত্ব দিয়েছেন যা আজকের দুনিয়ায় বিরল।''

ইসলামিক স্টেট নেতা আবু বকর আল বাগদাদি দ্বিতীয় স্থানে এবং তৃতীয় স্থানে এসেছেন আমেরিকায় প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প।

মিস গিবস্‌ মিসেস মেরকেল প্রসঙ্গে লিখেছেন, ''তিনি নিজের দেশের কাছ থেকে যা চেয়েছেন তা চাইতে অনেক রাজনীতিকই সাহস পাবেন না- তার সেই সাহসিকতার জন্য, স্বৈরতন্ত্রের বিরুদ্ধে তার কঠোর অবস্থানের জন্য এবং নৈতিকতাকে ভিত্তি করে নেতৃত্ব দেওয়া যা আজকের বিশ্বে বিরল- এসবের কারণেই তিনি টাইম ম্যাগাজিনের ২০১৫-র সেরা ব্যক্তিত্ব হয়েছেন।''

ইউরোপের শরণার্থী ও গ্রিসের আর্থিক সঙ্কট, সেইসঙ্গে প্যারিস হামলার প্রসঙ্গে টেনে মিস গিবস আরও লিখেছেন, ''এই সবগুলো ক্ষেত্রেই এগিয়ে এসেছেন মিসেস মেরকেল। তার কঠিন শর্ত বজায় রেখেও গ্রিসকে অর্থ সহায়তা দিয়েছেন- ইসলামী মৌলবাদের শিকার যারা তাদের শরণার্থী হিসাবে গ্রহণ করেছেন তিনি।''

টাইম ম্যাগাজিন পাঠকদের ভোট আহ্বান করলেও বিজয়ী নির্বাচনে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন সম্পাদকরা।

এর আগে এই খেতাবপ্রাপ্তদের তালিকায় অ্যাডল্ফ হিটলার, জোসেফ স্তালিন, মহাত্মা গান্ধী, উইন্সটন চার্চিল ও রিচার্ড নিক্সন-এর পাশাপাশি এখন যোগ হল ৬১ বছর বয়সী এঙ্গেলা মেরকেল-এর নাম।