বৃহৎ ইসলামী জোটের স্বপ্ন দেখছে ঐক্যজোট

ঢাকায় ইসলামী ঐক্য জোটের সম্মেলন।
Image caption ঢাকায় ইসলামী ঐক্যজোটের সম্মেলন।

বাংলাদেশে বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোট থেকে বেরিয়ে গেছে প্রায় দেড়যুগের শরিক ইসলামী ঐক্যজোট।

কওমি মাদ্রাসা-ভিত্তিক কয়েকটি দলের এই জোট বৃহস্পতিবার ঢাকায় তাদের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন থেকে বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোট থেকে বেরিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেয়।

ইসলামী ঐক্য জোটের নেতারা বলেছেন, তারা ইসলামপন্থী দলগুলোকে ঐক্যবদ্ধ করে স্বতন্ত্র এবং শক্তিশালী একটা অবস্থান তুলে ধরতে চান।

সে কারণেই তারা বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোট থেকে বেরিয়ে এসেছেন।

বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোটের বিভিন্ন বৈঠকে ইসলামী ঐক্যজোট অংশ নিচ্ছিল না কয়েক মাস ধরে।

ফলে ইসলামী ঐক্য জোট বিএনপির সাথে থাকছে না, এ ধরণের একটা গুঞ্জন ছিল রাজনৈতিক অঙ্গনে।

এমন পটভূমিতে ঢাকায় ইসলামী ঐক্যজোটের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে কি সিদ্ধান্ত আসে, সেদিকেই নজর ছিল বিএনপি এবং এর নেতৃত্বাধীন জোটের অন্যান্য শরিকদের।

ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ নিজামী সম্মেলনে দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে আসা তাদের প্রতিনিধিদের সামনে ঘোষণা করেন, তারা কওমি মাদ্রাসা-ভিত্তিক ইসলামী দলগুলোকে ঐক্যবদ্ধ করে একটি স্বতন্ত্র অবস্থান তৈরি করতে চান।

তবে বিএনপি অভিযোগ করেছে, বিভিন্ন মামলা এবং সরকারের চাপে ইসলামী ঐক্যজোট এই অবস্থান নিয়েছে।

বিএনপির সাথে বিভিন্ন বিষয়ে অভিমান থেকে তাদের মধ্যে দূরত্ব সৃষ্টি হয়েছে, এমন খবরও সংবাদ মাধ্যমে এসেছে।

তবে আব্দুল লতি নিজামই এসব বক্তব্য মানতে রাজি নন।

দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে ইসলামী ঐক্যজোটের নেতাকর্মীরা বাসে করে মিছিল নিয়ে এসে এই সম্মেলনে যোগ দিয়েছেন।

সম্মেলনে কেন্দ্রের অনেক নেতার পাশাপাশি মাঠ-পর্যায়ের নেতাদের বক্তব্যেও বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোট থেকে বেরিয়ে স্বতন্ত্র অবস্থান তৈরির তাগিদ ছিল।

শেষপর্যন্ত বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোট থেকে বেরিয়ে আসার সিদ্ধান্তকে মাঠ-পর্যায়ের অনেকেই তাদের জন্য ইতিবাচক হিসেবে বর্ণনা করেন।

তবে সম্মেলনে অংশ নেয়া অনেকে বিএনপির জোটে থাকার পক্ষে ছিলেন বলে মনে হয়েছে।

কিন্তু তারা মাইকের সামনে কথা বলতে চাননি।

১৯৯৯ সালের জানুয়ারি মাসে তৎকালীন আওয়ামী লীগ সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলনে বিএনপি চারদলীয় জোট গঠন করেছিল।

সেই প্রতিষ্ঠা থেকে ইসলামী ঐক্যজোট তাতে ছিল।

ফজলুল হক আমিনীর মৃত্যুর পর ইসলামী ঐক্যজোটের নেতৃত্বে এসেছেন আব্দুল লতিফ নিজামী এবং মি. আমিনীর ছেলে আবুল হাসানাত আমিনী।

এছাড়া এবার সম্মেলনে নতুন কমিটিতে হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব জুনায়েদ বাবুনগরীকেও রাখা হয়েছে।

হেফাজতে ইসলামের প্রধান নেতা আহমেদ শফির লিখিত শুভেচ্ছা বক্তব্যও সম্মেলনে পড়ে শোনানো হয়েছে।

আবুল হাসানাত আমিনী বলেছেন, তারা স্বতন্ত্রভাবে বড় একটি ফোরাম তৈরির টার্গেট নিয়েছেন।

তবে ইসলামী ঐক্যজোটে এখন ছোট ছোট যে তিনটি দল রয়েছে।

তার মধ্যে নেজামে ইসলামী পার্টির নেতারা এই সম্মেলনে অংশ নেননি।

এই দলটি ইসলামী ঐক্যজোট নাম নিয়ে বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোটেই থাকতে পারে বলে এর নেতারা বলেছেন।