জার্মানির ইসলাম-বিরোধী 'পেগিডা' কি এবার ব্রিটেনে

pegida_leipzig ছবির কপিরাইট Getty
Image caption পেগিডার সমাবেশ

জার্মানিতে কিছুকাল আগে যে বিতর্কিত ইসলাম-বিরোধী আন্দোলন 'পেগিডা'-র সূচনা হয়েছে - তা এবার ব্রিটেনে শুরু করার এক পরিকল্পনা হচ্ছে, এবং এর পেছনে মূল ব্যক্তি হচ্ছেন উগ্র-দক্ষিণপন্থী সংগঠন ইংলিশ ডিফেন্স লিগ বা ইডিএলের নেতা টমি রবিনসন।

তারা বার্মিংহামে আগামি সপ্তাহে এক সমাবেশের আয়োজন করেছেন, যার উদ্দেশ্য নিয়ে সেখানকার মুসলিমদের মধ্যে সংশয় সৃষ্টি হয়েছে।

আগামি সপ্তাহে ব্রিটেনের বার্মিংহাম শহরে এক প্রতিবাদ বিক্ষোভের ডাক দিয়েছেন টমি রবিনসন, যিনি পেগিডার ব্রিটেন সংস্করণের 'প্রধান-সমন্বয়কারী'র ভুমিকা নিয়েছেন।

ছবির কপিরাইট bbc
Image caption টমি রবিনসন

তেত্রিশ বছর বয়স্ক টমি রবিনসন ব্রিটেনে একজন বিতর্কিত ব্যক্তি। তিনি এর আগে বাড়ি কেনার জন্য ব্যাংক ঋণ নিয়ে জালিয়াতি, এবং পাসপোর্ট সংক্রান্ত অপরাধের জন্য জেল খেটেছেন।

পরে আবার তিনি ইডিএল ছেড়ে কিছুদিন চরমপন্থা-বিরোধী সংস্থা কুইলিয়াম ফাউন্ডেশনের সাথেও জড়িত হয়েছিলেন।

অভিবাসন এবং ইসলামের বিরুদ্ধে জার্মানিতে ড্রেসডেন এবং কোলনের মতো শহরগুলোয় পেগিডা যেসব সাপ্তাহিক বিক্ষোভ করে থাকে - তাতে মধ্যবিত্ত শ্রেণীর হাজার হাজার লোক যোগ দিয়ে থাকেন।

একে ব্রিটেনে নিয়ে আসার চেষ্টা এর আগেও হয়েছিল তবে তা সাফল্য পায় নি।

Image caption ইডিএলের বিক্ষোভ

কিন্তু ব্রিটেনে অভিবাসনবিরোধী উগ্র দক্ষিণপন্থী সংগঠন ইংলিশ ডিফেন্স লিগের প্রতিষ্ঠাতা টমি রবিনসন মনে করছেন, এই আন্দোলন ব্রিটেনেও মধ্যবিত্ত শ্রেণীকে আকৃষ্ট করতে পারে।

তার দাবির মধ্যে আছে, ব্রিটেনে মুসলিম অভিবাসন ও শরিয়া আদালত বন্ধ করা, প্রকাশ্যে বোরকা পরা এবং নতুন মসজিদ নির্মাণ নিষিদ্ধ করা।

তার প্রতিষ্ঠিত ইংলিশ ডিফেন্স লিগ উচ্ছৃঙ্খল আচরণ এবং মাতলামি-প্রসূত সহিংসতার জন্যে কুখ্যাত হয়ে উঠেছিল।

এখন পেগিডা আন্দোলনকে ব্রিটেনে আমদানি করার এই চেষ্টাকে সংশয় এবং উৎকণ্ঠার সাথে দেখছেন ব্রিটেনের মুসলিমরা।

ছবির কপিরাইট na
Image caption ভিয়েনায় পেগিডার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ

বার্মিংহামের একটি ওয়ার্ডের মুসলিম কাউন্সিলর ওয়াসিম জাফর বলছেন, তিনি চান পেগিডার এই সমাবেশ নিষিদ্ধ করা হোক। তার কথায়, টিম রবিনসন ইসলাম সম্পর্কে তার বিকৃত মত প্রচার করে বর্ণবাদী ঘৃণা ছড়াচ্ছেন এবং সমাজে বিভক্তি সৃষ্টি করছেন।

রবিনসন অবশ্য এসব সমালোচনা প্রত্যাখ্যান করে বলে থাকেন যে তিনি মুসলিম-বিদ্বেষী নন।

রেসপেক্ট পার্টির সাবেক নেতা সালমা ইয়াকুব বলছেন, রবিনসনের মধ্যে কোন পরিবর্তন হয় নি।

"তিনি মুসলিমদের সম্পর্কে যা বলছেন তাতে বরং কেউ কেউ উগ্রপন্থার দিকে আকৃষ্ট হতে পারে" - বলছেন ইয়াকুব।