সরকারি চাকরিজীবীদের ফেসবুক ব্যবহারে নির্দেশনা

ছবির কপিরাইট AFP
Image caption সরকারি সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানকে ফেসবুক ব্যাবহারের উৎসাহিত করা হয়েছে

বাংলাদেশে সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা ফেসবুকে কি করতে পারবেন আর কি করতে পারবেন না সেবিষয়ে সরকার একটি নির্দেশনা জারি করেছে।

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্ট পরিচালনার সময় তাদেরকে দায়িত্বশীল আচরণ করতে হবে, মেনে চলতে হবে কিছু অনুশাসন।

এছাড়াও মন্তব্য করার বিষয় বেছে নেওয়া এবং বন্ধু নির্বাচনের ক্ষেত্রেও সতর্কতা অবলম্বন করতে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

তাদেরকে অপ্রয়োজনীয় ট্যাগিং করা থেকেও বিরত থাকতে বলা হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে আজ রোববার এই নির্দেশনা জারি করা হয়েছে।

সরকারি এই নির্দেশনায় বলা হয়েছে, জাতীয় ঐক্য ও চেতনার পরিপন্থী কোনো কনটেন্ট প্রকাশ করা যাবে না।

প্রকাশ করা যাবে না কোনো সম্প্রদায়ের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানতে পারে এরকম কোনো কনটেন্টও।

জনমনে অসন্তোষ সৃষ্টি করতে পারে এধরনের মন্তব্য করার ব্যাপারেও সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের নিষেধ করে দেওয়া হয়েছে।

বাংলাদেশে বসবাসকারী আদিবাসী, ক্ষুদ্র জতিসত্ত্বা, নৃ-গোষ্ঠী বা কোনো সম্প্রদায়ের প্রতি বৈষম্যমূলক বা তাদেরকে হেয় করতে পারে এধরনের কনটেন্টও প্রকাশ করা যাবে না।

এছাড়াও বিভিন্ন সরকারি সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানকে ফেসবুকে সক্রিয় হওয়ারও তাগাদা দিয়েছে সরকার।

এমনকি এসব পেজে পোস্ট, কমেন্ট বা পেইজ খোলার জন্যে পুরষ্কার দেওয়ার কথাও বলা হয়েছে।

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, বাংলাদেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের ৮০ শতাংশ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে থাকেন।

এবং সারা দেশে আটশোরও বেশি সরকারি অফিসে দাপ্তরিক কাজে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ব্যবহার করা হচ্ছে।