নির্বাচনী সহিংসতায় পাবনায় গুলিতে একজনের মৃত্যু

ছবির কপিরাইট Focus Bangla
Image caption লক্ষ্মীপুরে ব্যালট ছিনতাই-এর চেষ্টা হলে পুলিশের ধাওয়া দেওয়ার ঘটনা ঘটে।

বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে বিচ্ছিন্ন সহিংসতার মাধ্যমে আজ শনিবার ইউনিয়ন পরিষদের তৃতীয় পর্বের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। ছয় শতাধিক ইউপিতে এই ভোটাভুটি হয়।

কয়েকটি স্থান থেকে বড় ধরণের সহিংসতার খবর এসেছে।

পাবনার চাটমোহর উপজেলায় নির্বাচনী সহিংসতায় বিজিবি'র গুলিতে একজন নিহত হয়েছে।

ওসি সুব্রত কুমার সরকার বলেছেন, নির্বাচনে হেরে গিয়ে মথুরপুর ইউনিয়নের এক সদস্য প্রার্থী ভোট পুনর্গণনার দাবিতে নির্বাচনী কর্মকর্তাদের উপর হামলা চালায়।

তারা বাহাদুরপুর গ্রামে ব্যালট বাক্স সহ নির্বাচনী মালামাল ছিনিয়ে নিতে হামলা চালায় এবং কর্মকর্তা সহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারীদের উপর হামলা চালায়।

“এসময় সরকারি মালামাল এবং আত্মরক্ষার্থে উপস্থিত ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশে বিজিবি গুলি চালায়। গুলিতে এমদাদ হোসেন নামে একজন নিহত হয়”। বলছিলেন মি. সরকার।

এ হামলায় বিজিবির কয়েকজনও আহত হয়। এদের মধ্যে একজন মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত। তার অবস্থা গুরুতর।

বাংলাদেশের ছয়শোর বেশি ইউনিয়নে আজ তৃতীয় দফায় এই ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।

ভোট গ্রহণকে কেন্দ্র করে সারা দেশেই বিচ্ছিন্ন সহিংসতা হয়েছে।

চাঁদপুর, লক্ষীপুর, গাজীপুর শেরপুর ও জামালপুরে পৃথক সংঘর্ষে তিনজন পুলিশ গুলিবিদ্ধ হওয়া সহ বেশ কিছু মানুষ আহত হবার খবর পাওয়া গেছে।

আওয়ামীলীগ এই নির্বাচনকে সুষ্ঠু বলে দাবি করলেও বিএনপি আবারও কারচুপির অভিযোগ এনেছে।

নির্বাচন কমিশন দাবি করছে প্রথম দুই ধাপের নির্বাচনের চাইতে অপেক্ষাকৃত সুষ্ঠু ছিল আজকের ভোটাভুটি।

এর আগে প্রথম দুই ধাপের ভোটাভুটির দুই পর্বেই ব্যাপক সহিংসতা হয় দেশজুড়ে, যেখানে বেশ কিছু মানুষ নিহত হয়।