ফ্রান্সে ফুটবল সমর্থকদের দফায় দফায় মারামারি

ছবির কপিরাইট Getty

ইউরো ফুটবল ২০১৬ চ্যাম্পিয়নশিপে ইংল্যান্ড ও রাশিয়ার ম্যাচের আগে ও পরে ব্যাপক সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে।

ফ্রান্সের মার্সেই শহরে ফুটবল সমর্থকদের মধ্যে সংঘটিত এই সংঘর্ষের ঘটনায় অন্তত ত্রিশ জন আহত হয়েছে।

ইউরোপীয় ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা উয়েফা এ ঘটনায় তদন্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তিন দিন আগে থেকেই মার্সেই শহরের চলছিল ফুটবল সমর্থকদের মাঝে সংঘাত। ইংল্যান্ড রাশিয়া ম্যাচ শুরুর আগে ওল্ড পোর্ট এলাকায় দুপক্ষের মারামারি থামাতে পুলিশ টিয়ার গ্যাস ও জল কামান ব্যবহার করে।

এসব চলছিল মাঠের বাইরেই। তবে ইংল্যান্ডের সাথে খেলা শেষ হওয়ার পর রাশিয়ার সমর্থকরা ইংল্যান্ড দলের সমর্থকদের ওপর হামলা চালায় স্টেডিয়ামের ভেতরেই।

নাইস শহরেও দুই পক্ষের মধ্যে মারামারি চলছে বলে খবর আসছে।

ছবির কপিরাইট Getty
Image caption আহতদের একজন

পুলিশ বলছে বেশ কজন আহত তাদের মধ্যে দুজনের অবস্থা গুরুতর । তাদের একজন ব্রিটিশ।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, খেলা চলার সময় রাশিয়ার আগুনের পিণ্ড সমর্থকরা ছুড়তে থাকে এবং তাদের কেউ কেউ দুপক্ষের মধ্যকারর বিভাজন মূলক বেষ্টনীর ওপর উঠে পড়ে।

এসময় আতঙ্কিত হয়ে পড়তে দেখা যায় ইংলিশ সমর্থকদের। বিবিসির স্পোর্টস এডিটর ড্যান রোয়ান এক টুইটে লিখেছেন, এটি উয়েফার জন্য বিরাট এক প্রশ্ন।

এ ধরনের জিনিসপত্র নিয়ে ভেতরে ঢুকল কিভাবে লোকজন?”

ছবির কপিরাইট Getty

রাশিয়া ও ইংল্যান্ডের সমর্থকদের সাথে সাথে ফরাসি ফুটবল সমর্থকরাও এই সংঘাতে জড়িয়ে পড়ে। যদিও সমর্থকদের বিশাল অংশই শান্ত ছিল কিন্তু স্টেডিয়ামের বাইরে বিশৃঙ্খলা চলছিলই।

উয়েফা কর্তৃপক্ষ বলছে, যারা এ ধরনের আচরণ করতে পারে ফুটবলের সাথে তাদের কোনও সম্পর্ক থাকতে পারে না।

শনিবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্ডি বার্নহ্যাম বলেন, ইংল্যান্ড দলের সমর্থকদের আচরণ ছিল লজ্জাজনক।

পুলিশ এ ঘটনায় অন্তত ছয়জনকে গ্রেপ্তার করেছে।

ছবির কপিরাইট Reuters
Image caption পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে টিয়ার গ্যাস ও জলকামান ব্যবহার করে পুলিশ

চিঠিপত্র: সম্পাদকের উত্তর