ব্রেক্সিট: টিভি বিতর্কে মুখোমুখি ‘লিভ’ আর ‘রিমেইন’

Image caption ‘গ্রেট ডিবেটে’ মুখোমুখি ‘লিভ’ ও ‘রিমেইন’ পক্ষের নেতারা।

ব্রিটেন ইউরোপের সাথে থাকবে কি থাকবে না, তা নিয়ে আগামীকালের গণভোটকে সামনে রেখে ইতিহাসের বৃহত্তম সরাসরি টিভি বিতর্কে মুখোমুখি হয়েছিলেন দুই পক্ষের সামনের সারির নেতারা।

স্মরণকালের বৃহত্তম এই সরাসরি টিভি বিতর্কটি অনুষ্ঠিত হয় ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে, যার দর্শক ছিল ছয় হাজারের মত মানুষ।

বিবিসিতে সরাসরি সম্প্রচারিত এই ‘গ্রেট ডিবেটে’ দুই ঘন্টা ধরে অভিবাসন, অর্থনীতি ও সার্বভৌমত্ব নিয়ে তর্কযুদ্ধ করেন উভয় পক্ষের নেতারা।

যারা ইউরোপ থেকে বেরিয়ে যেতে চান সেই ‘লিভ’ পক্ষে ছিলেন লন্ডনের সাবেক মেয়র বরিস জনসন।

অন্য অংশ, অর্থাৎ ‘রিমেইন’ পক্ষে ছিলেন স্কটিশ টোরি নেত্রী রুথ ডেভিডসন।

মিস ডেভিডসন ‘লিভ’কে বর্ণনা করছিলেন ‘মিথ্যে’র পক্ষ হিসেবে।

ওদিকে মি. জনসনের বর্ননায় ‘রিমেইন’ পক্ষ ‘কথা দিয়ে দেশকে ছোট করছে’।

সমাপনী বক্তব্যে মি. জনসন বলেন, ব্রিটেনবাসী যদি ‘লিভ’কে ভোট দেয় তাহলে ‘বৃহস্পতিবার হতে পারে আমাদের দেশের স্বাধীনতা দিবস’।

এসময় তার সমর্থকেরা উঠে দাঁড়িয়ে তাকে জয়ধ্বনি দেয়।

আর ‘রিমেইন’ পক্ষের হয়ে সমাপনী বক্তব্যে মিস ডেভিডসন সমর্থকদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘শতভাগ নিশ্চিত হতে হবে। নইলে আমাদের আর শুক্রবার সকালে আর ফেরার সুযোগ থাকবে না’।

এই বিতর্কটি ছিল মূলত ইইউ গণভোট নিয়ে প্রচারণায় ভোটারদের কাছে নিজেদের অবস্থান তুলে ধরবার শেষ সুযোগ।

বিতর্কে বরিস জনসন ও লন্ডনের মেয়র সাদিক খান যখন মুখোমুখি হন, তখন বেশ উত্তাপ তৈরি হয়।

মি. খান ‘রিমেইন’ পক্ষের একজন নেতা।

চিঠিপত্র: সম্পাদকের উত্তর