আবারও যুদ্ধের কবলে দক্ষিণ সুদান

Image caption প্রেসিডেন্ট সালভা কীর

দক্ষিণ সুদানের রাজধানীতে প্রেসিডেন্ট ও ভাইস প্রেসিডেন্টের অনুগত সৈন্যদের মধ্যে তীব্র লড়াই চলছে।

জুবা শহরের এই লড়াইতে জাতিসংঘের আশ্রয় শিবিরও আক্রান্ত হয়েছে।

বিমানবন্দরের কাছেও লড়াইয়ের খবর পাওয়া গেছে।

দক্ষিণ সুদানে দু’বছর ধরে চলা গৃহযুদ্ধ বন্ধের লক্ষ্যে সম্প্রতি একটি শান্তি চুক্তি হয়, কিন্তু সেই চুক্তির ভবিষ্যৎ এখন প্রশ্নবিদ্ধ।

জাতিসংঘ দুই পক্ষেরই সমালোচনা করেছে।

জাতিসংঘের মধ্যস্থতায় বিবদমান দুটো গ্রুপের মধ্যে যে সমঝোতা হয়েছিলো তার আওতায় সাবেক বিদ্রোহীরা রাজধানী জুবায় ফিরে এসেছিলো, যদিও তাদেরকে সরকারি বাহিনীতে এখনও ফিরিয়ে নেওয়া হয়নি।

প্রেসিডেন্ট সালভা কীর ও ভাইস প্রেসিডেন্ট রিয়েক মাচারের বাহিনী চেষ্টা করছিলো গত দু’বছরের গৃহযুদ্ধের অবসান ঘটিয়ে একটি শান্তি সমঝোতায় পৌঁছাতে।

ছবির কপিরাইট .

কিন্তু ভাইস প্রেসিডেন্ট রিয়েক মাচারের বাহিনী বলছে, সরকারি সৈন্যরা রাজধানী জুবায় তাদের ব্যারাকের ওপর হামলা চালিয়েছে।

জাতিসংঘের প্রতিনিধিরাও জানাচ্ছেন যে তাদের সদর দপ্তরের কাছে প্রচণ্ড গোলাগুলির শব্দ শোনা যাচ্ছে।

গত বৃহস্পতিবার থেকে প্রেসিডেন্ট ও ভাইস প্রেসিডেন্টের অনুগত বাহিনীর মধ্যে এই সংঘর্ষ শুরু হয়।

বিবিসির সংবাদদাতা বলছেন, রকেট-চালিত গ্রেনেড, মর্টার, ট্যাঙ্ক ও হেলিকপ্টার গানশীপের মতো ভারী অস্ত্রশস্ত্র দিয়ে এসব হামলা পরিচালিত হচ্ছে।

Image caption ভাইস প্রেসিডেন্ট রিয়েক মাচার

বলা হচ্ছে, এখনও পর্যন্ত উভয়পক্ষের একশোজনেরও বেশি সৈন্য নিহত হয়েছে।

প্রাণ বাঁচাতে আশেপাশের এলাকা থেকে বেসামরিক লোকজন পালিয়ে যাচ্ছে।

এই পরিস্থিতিতে প্রেসিডেন্ট ও ভাইস প্রেসিডেন্ট দু’জনেই তার সমর্থকদের শান্ত হওয়ার আহবান জানিয়েছেন।

কিন্তু দৃশ্যত এই সংঘাত এখন তাদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে।

আশঙ্কা করা হচ্ছে, সর্বশেষ এই সংঘর্ষের কারণে দেশটিতে আবারও নতুন করে গৃহযুদ্ধ শুরু হয়ে যেতে পারে।

চিঠিপত্র: সম্পাদকের উত্তর