http://www.bbcbengali.com

31 অগাস্ট, 2009 - প্রকাশের সময় 14:59 GMT

বাংলাদেশে সমাপনী পরীক্ষা চালুর সিদ্ধান্ত

বাংলাদেশের সরকার চলতি বছরেই পঞ্চম শ্রেণীতে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা নামে একটি পাবলিক পরীক্ষা চালুর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

সোমবার দেশটির মন্ত্রীসভার বৈঠকে বিষয়টি অনুমোদিত হয়। নতুন এ পদ্ধতিতে আর আলাদা করে শিক্ষার্থীদের বৃত্তি পরীক্ষা দিতে হবে না, বছর শেষে একটি সমাপনী পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে এবং সেই ফলাফলের ওপর ভিত্তি করেই বৃত্তি দেওয়া হবে।

ঢাকা থেকে সংবাদদাতা শেখ সাবিহা আলম জানাচ্ছেন, সরকারের তরফ থেকে বলা হচ্ছে, পাঁচ বছর মেয়াদী প্রাথমিক শিক্ষা শেষে সমাপনী পরীক্ষা নামের পাবলিক পরীক্ষা চালুর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার পেছনে মূল কারণই হচ্ছে সামগ্রিকভাবে প্রাথমিক শিক্ষার মানোন্নয়ন।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব বদরুল আলম তরফদার বলেন, পঞ্চম শ্রেণীতে চল্লিশ শতাংশ ছাত্রছাত্রীকে বৃত্তি পরীক্ষা দেওয়ানোর জন্য শিক্ষকরা কাজ করে থাকেন৻ ফলে সব শিক্ষার্থীদের সমানভাবে যত্ন করা হয় না।

নতুন এই সিদ্ধান্তের ফলে পাবলিক পরীক্ষার মাধ্যমেই যারা ভালো ফলাফল করবে এমন ৫০ হাজার ছাত্র ছাত্রীকে বৃত্তি দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন মি: আলম।

সংবাদাদাতারা জানাচ্ছেন, পঞ্চম শ্রেণীতে পাবলিক পরীক্ষা চালুর উদ্যোগ হিসেবে ২০০৬ থেকেই থানা পর্যায়ে সমাপনী পরীক্ষা চলে আসছিল।

এ বছরের শেষে পরীক্ষা নেওয়ার ক্ষেত্রে গ্রাম এলাকাগুলোয় প্রতি ইউনিয়নে অন্তত: দুটি পরীক্ষা কেন্দ্র স্থাপনের পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, একটি ন্যাশনাল এ্যাসেসমেন্ট সেল গঠন করে এই পরীক্ষার বিভিন্ন দিক খতিয়ে দেখা হবে।

সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে এবছরের নভেম্বরের ২২, ২৩ ও ২৪ তারিখ ঊনিশ লক্ষ ছাত্রছাত্রী প্রথমবারের মত পঞ্চম শ্রেণীত পাবলিক পরীক্ষায় বসবে।